সিরাজগঞ্জে আবারো যমুনায় পানি বৃদ্ধি, উদ্বিগ্ন বানভাসিরা

Ads
সিরাজগঞ্জের বন্যাদুর্গত মানুষেরা বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে নিজ নিজ বাসস্থানে যাওয়া শুরু করলেও যমুনা নদীতে আবারো পানি বৃদ্ধিতে তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। গত দুই দিনে যমুনা নদীর সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে পানি ১৭ সেন্টিমিটার বাড়লেও তা এখন বিপৎসমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত দুই দিনে অব্যাহত পানি বৃদ্ধির ফলে থমকে গেছে দুর্গত মানুষের জীবন। অনেকেই পানি বৃদ্ধি দেখে বাড়ি ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন।
সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে গত দুই দিনে সিরাজগঞ্জের কাছে যমুনা নদীর পানি ১৭ সেন্টিমিটার বেড়ে বৃহস্পতিবার সকালে তা বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এদিকে বন্যা সতর্কীকরণ ও পূর্বাভাস কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী আগামী সপ্তাহ থেকে বৃষ্টিপাতের আশঙ্কায় বন্যাদুর্গত মানুষেরা এখন দ্বিধান্বিত হয়ে পড়েছেন।
পাইকপাড়া গ্রামের দিলবার হোসেন জানালেন প্রায় দেড় মাস ধরে ঘরবাড়ি পানিতে ডুবে থাকায় ঘরবাড়িগুলো এখন নাজুক হয়ে পড়েছে। প্রাথমিক সংস্কার ছাড়া ঘরে বসবাস করা সম্ভব না। তার ওপর যদি আবারো পানি বৃদ্ধি পায় তাহলে বাড়িতে বসবাস করাই মুশকিল হয়ে পড়বে। ঘরে সঞ্চিত এমন কোনো অর্থ নেই যে তা দিয়ে তাদের বাড়িঘর মেরামত করবে। দীর্ঘ এই বন্যাকালীন তিনি সামান্য কিছু খাদ্য সহায়তা পেলেও কোনো অর্থ বরাদ্দ পাননি। খোকশাবাড়ী কারিগর পাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদ জানালেন দুই দিন আগে বাড়ি ফিরলেও আবারও পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বাধ্য হয়ে পুনরায় বাঁধে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন তিনি।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানান, জেলার ছয়টি উপজেলার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের তালিকা প্রণয়নের কাজ শুরু করা হলেও চতুর্থ দফা বন্যার কারণে তা পিছিয়ে গেছে তার মতে এই তালিকা প্রণয়ন করতে আরো এক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে
জেলার বন্যা উপদ্রুত ৬টি উপজেলায় ডায়রিয়া ও পাতলা পায়খানায় শিশু ও নারীসহ ৭৩৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত জেলায় পানিতে ডুবে মারা গেছেন ২৭ জন এবং সাপের কামড়ে মারা গেছেন আটজন।
সিরাজগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, বন্যাজনিত কারণে পানি বাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ। তিনি জানান, জেলার বন্যা উপদ্রুত উপজেলাগুলোতে শুরু থেকেই ৯৩টি মেডিক্যাল টিম কাজ করছে। এছাড়া সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসার জন্য ভ্যাকসিন ‘অ্যান্টিভেনম’ এর মধ্যে জেনারেল হাসপাতালে সরবরাহ করা হয়েছে।
Ads
আরও পড়ুন
Loading...