চট্টগ্রাম বন্দরে ছয় বছরেও সরেনি তেজস্ক্রিয় বস্তু

Ads

প্রায় ছয় বছর আগে চট্টগ্রাম বন্দরে মরিচারোধী লোহার পুরোনো পণ্যে তেজস্ক্রিয় পদার্থ শনাক্ত হয়েছিল। এর মধ্যে তিনটি চালানে পাওয়া তেজস্ক্রিয় পদার্থ বন্দর থেকে সরানো হয়নি। প্রথম শনাক্ত হওয়া তেজস্ক্রিয় পদার্থটি বন্দরের সংরক্ষিত এলাকায় সিপিআর ফটকের পাশে ‘মেগাপোর্ট ইনিশিয়েটিভ প্রকল্প’ কার্যালয়ের পাশে রাখা হয়েছে। এই ঘটনার পর এ পর্যন্ত বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানির আরও কয়েকটি চালানে তেজস্ক্রিয় পদার্থ শনাক্ত হয়। কনটেইনারের ভেতর তেজস্ক্রিয় পদার্থটি একটি বাক্সে রেখে চত্বরটির চারদিকে ঘেরাও করে রাখা হয়েছে। বাকি দুটি কনটেইনারও সেখানে রাখা হয়েছে।তেজস্ক্রিয় পদার্থ উদ্ধারের পর বিজ্ঞানীরা বলেছেন, কনটেইনারের ভেতরে রাখা হলেও তেজস্ক্রিয় পদার্থ রাখার জন্য মোটেই নিরাপদ স্থান নয় বন্দর চত্বর। কারণ, কোনো কারণে এটির সংস্পর্শে এলে মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ হতে পারে। আবার পানিতে ভিজে গেলেও পানি দূষিত হয়ে পড়বে। নিয়মানুযায়ী, ক্ষতিকর তেজস্ক্রিয় বর্জ্য সাভারের তেজস্ক্রিয় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ইউনিটে সংরক্ষণ করার কথা।

Ads
আরও পড়ুন
Loading...