কুড়িগ্রামের রৌমারী বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথেই চুলিয়ারচর ঝোরার তীব্র স্রোতে সর্বহাড়া অনেকেই

Ads

মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ সরেজমিনে দেখা গেছে, ভারতের আসাম রাজ্যের মানকারচর সীমান্ত থেকে নেমে আসা একটি পাহাড়ী ঝরনা। ওই ঝরনাটি রৌমারী উপজেলার সদর ইউনিয়নের চুলিয়ারচর,বারবান্দা ঝাইবাড়ী,বকবান্দা হয়ে জিঞ্জিরাম নদীতে সংযোগ হয়। তারই তীব্র স্রোতের ভাঙনে প্রায় সত্বাধিক ঘর-বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে এবং ভারতে বৃষ্টি হলেই এই সীমান্ত এলাকার ঝোরার আশপাশের মানুষ গুলোর ঘুম হারাম হয়ে যায়। এতে প্রতি বছর নদী ভাঙনের ফলে গ্রামের পর গ্রামের ঘর-বাড়ী, ফসলী জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,  গাছপালা বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদী গর্ভে। হাজার হাজার মানুষ তাদের বাপ-দাদার ভিটে মাটি হারিয়ে পরিণত হচ্ছে ভূমিহীনে। এসব পরিবার সব কিছু হারিয়ে আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন উচুঁ বাঁধ, অন্যের জমি ও আত্মীয়-স্বজনদের বাড়ীতে। ঝোরার তীব্র স্রোতে সর্বশান্ত ছবুরা খাতুন, আফরুজা খাতুন, রাশিদা খাতুন, হযরত আলীসহ আরো অনেকেই সর্বশান্ত হয়ে অন্যের বাড়ীতে আশ্রয়হীনতায় ভুগছেন তারা।এবিষয়ে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল ইমরান বলেন আমি ওই এলাকা গিয়েছিলাম, তাদের দুঃখের শেষ নেই। আমি উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের কাছে তাদের জন্য আবেদন করেছি অনুদান আসলেই তাদের বাসস্থান করা হবে।

Ads
আরও পড়ুন
Loading...